অবসরে গেলে বা চাকরী ছেড়ে দিলে কিভাবে রিটার্ন দাখিল করবেন?

//অবসরে গেলে বা চাকরী ছেড়ে দিলে কিভাবে রিটার্ন দাখিল করবেন?

অবসরে গেলে বা চাকরী ছেড়ে দিলে কিভাবে রিটার্ন দাখিল করবেন?

আর কিছুদিন পরই শুরু হবে আয়কর মেলা। তখন রিটার্ন জমা দেওয়ার উৎসব লেগে যাবে। তবে যারা নিয়মিত রিটার্ন দাখিল করেন তারা হয়তো ইতোমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন। কারন, আগে থেকেই প্রস্তুতি শুরু করে দিলে শেষ দিকে তাড়াহুড়া করতে হয় না।

আমরা সাধারণত জানি, কোন ব্যক্তির যদি সারা বছরে করযোগ্য আয় ২৫০,০০০ টাকা বা তার বেশি হয় তাহলে তাকে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হয়। রিটার্ন ফর্ম অনেকটা জটিল থাকায় অনেকেই ভীত থাকেন। তবে প্রতি বছরই জাতীয় রাজস্ব বোর্ড চেষ্টা করে রিটার্ন ফর্ম সহজতর করার জন্য।যেমন, গত বছর থেকে একজন চাকরীজীবী করদাতার জন্য মাত্র তিন পাতার মূল রিটার্ন ফর্ম চালু হয়েছে। এটা অনেক সহজ এবং কম সময়সাপেক্ষ।

কিন্তু যারা চাকরী থেকে অবসর নিয়েছেন বা চাকরী ছেড়ে দিয়েছেন তারা কিভাবে রিটার্ন দাখিল করবেন?এর উত্তর কয়েকটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে।

যেমন, আপনি চাকরী থেকে অবসর নিলে বা চাকরী ছেড়ে দিলে আপনার যদি কর যোগ্য আয় ২৫০,০০০ টাকার বেশি থাকে তাহলে আপনাকে রিটার্ন দাখিল করতে হবে।

আবার, আপনার বয়স যদি ৬৫ বছরের বেশি হয় তাহলে আপনার করযোগ্য আয় ৩,০০০০০ টাকা বা তার বেশি হলে আপনাকে রিটার্ন দাখিল করতে হবে।

এখন অনেকেরই প্রশ্ন থাকতে পারে আপনি রিটার্নে কোন আয়গুলো দেখাবেন? এবং কিভাবে দেখাবেন?

আপনি যদি এই বছর অবসরে গিয়ে থাকেন তাহলে আপনি চাকরী থেকে হয়তো গ্র্যাচুইটি তহবিল বা প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে টাকা পেয়েছেন। এই দুইটি ফান্ড থেকে আপনি চাকরী শেষে যতো টাকাই পেয়ে থাকেন তার পুরুটাই করমুক্ত। অর্থাৎ আপনাকে এর উপর কোন কর দিতে হবে না।

এর বাইরে আপনার অন্যান্য খাত যেমন এফডিয়ার থেকে সুদ, কৃষি আয়, বাড়িভাড়া থেকে আয় বা ব্যবসা থেকে আয় আগে যেভাবে দেখাতেন ঠিক সেভাবেই দেখাবেন।

আগে চাকরী করা অবস্থায় প্রতি মাসে বেতন থেকে উৎসে কর কর্তন করে বাকি টাকা ব্যাংকে ট্রান্সফার করতো। তাই হয়তো বছর শেষে নীট করদায় কম আসতো। কিন্তু এখন যেহেতু আপনার সে রকম কোন আয় নেই তাই করদায় বেশি আসতে পারে।

আবার চাকরী না থাকার কারনে আপনার আয় অনেকটা কমে আসবে। সে দিক দিয়ে আবার আপনার করযোগ্য আয় অনেক কমে যাবে যার ফলে বছর শেষে অনেকটা কম কর আসবে।

চাকরী থেকে অবসরের পরে আপনি হয়তো অন্যান্য অনেক কাজে জড়িত হয়ে যেতে পারেন। সেখান থেকে আপনার আয় হতে পারে। সেখান থেকে আপনাকে টাকা পরিশোধের সময় যদি উৎসে কর কর্তন করে পরিশোধ করে তাহলে বছর শেষ হওয়ার আগে আগেই তাদের কাছ থেকে চালান সংগ্রহ করে নিতে পারেন।

কারন, এই চালান আপনি যখন রিটার্ন দাখিল করবেন তখন তার সাথে জমা দিতে হবে। এটা আপনার আয় থেকে উৎসে কর কর্তনের প্রমান হিসেবে কাজে দিবে।

জসীম উদ্দিন রাসেল।
FACEBOOK

By | 2018-09-03T07:40:45+00:00 September 3rd, 2018|Tax Filing|0 Comments

About the Author:

Leave A Comment

*

Shares