ব্যবসায় আয় কিভাবে আয়কর রিটার্নে দেখাবেন ?

//ব্যবসায় আয় কিভাবে আয়কর রিটার্নে দেখাবেন ?

ব্যবসায় আয় কিভাবে আয়কর রিটার্নে দেখাবেন ?

ব্যক্তি করদাতার আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়া শুরু হয়েছে। নভেম্বরের শুরুতেই আয়কর মেলা শুরু হবে। তবে নভেম্বর সারা মাস ধরেই আয়কর রিটার্ন জমা দেয়া যাবে।

ব্যক্তি করদাতার আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ হলো ৩০ নভেম্বর। এই দিন আয়কর দিবস হিসেবে পরিচিত।

যেহেতু সময় আর বেশি নেই তাই শেষ দিকে তাড়াহুড়া না করে এখন থেকেই দরকারি কাগজপত্র সংগ্রহ করে রিটার্ন তৈরির কাজ শুরু করে দিতে পারেন।

যারা ব্যবসা করেন তাদের ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্নে বাড়তি তথ্য দিতে হয়। আর এবারই যারা নতুন ব্যবসা শুরু করেছেন তাদের জন্য অনেক কিছুই নতুন মনে হবে। তাই একটু আগেই রিটার্ন তৈরির কাজ শুরু করে দিতে পারেন।

ব্যবসায়ীদেরকে ব্যক্তি করদাতাদের যে নির্ধারিত ফর্ম রয়েছে তার সাথে তফসিল ২৪সি পূরণ করতে হবে। ২০১৬-১৭ কর বছরে নতুন আয়কর ফর্মের সাথে ২৪সি প্রবর্তন করা হয়। এই ফর্মটি পূরণ করে মূল রিটার্ন ফর্মের সাথে জমা দিতে হয়।

তফসিল ২৪সি ফর্মে আপনার ব্যবসার ধরন উল্লেখ করবেন। যেমন, আপনি যদি খুচরা ব্যবসা করেন তাহলে এখানে তাই লিখবেন। আর উল্লেখ করতে হয় ব্যবসার নাম। এই নামটি হবে হুবহু আপনি যেই নামে ট্রেড লাইসেন্স নিয়েছিলেন সেই নামে। এবং আপনার ব্যবসার ঠিকানা উল্লেখ করতে হবে। এটাও আপনার ট্রেড লাইসেন্সে যে ঠিকানা উল্লেখ করেছেন সেই ঠিকানা উল্লেখ করবেন।

এই সব সাধারন তথ্য দেয়া হয়ে গেলে আপনি আপনার ব্যবসার লাভ ও ক্ষতি হিসেব থেকে কিছু উল্লেখযোগ্য তথ্য দিতে হয়। যেমন, মোট বিক্রয়, মোট মুনাফা, সাধারন ও অন্যান্য খরচ এবং নিট মুনাফা ইত্যাদি।

তবে আপনাকে এই তথ্য দেয়ার সময় মনে রাখতে হবে, আপনার ব্যক্তিগত খরচ বা ব্যবসার বাইরে যে খরচ হবে তা ব্যবসার আয় থেকে অর্থাৎ বিক্রয় থেকে বাদ দিতে পারবেন না। তাছাড়া, ব্যবসার মূলধনী প্রকৃতির খরচও আয় থেকে বাদ দিয়ে দেখাতে পারবেন না। তবে আপনি এই মূলধনী খরচ প্রতি বছর আয়কর আইন অনুযায়ী নির্ধারিত হারে অবচয় হিসেবে দেখাতে পারবেন।

এই তথ্যগুলো দেয়া হয়ে গেলে পরে আপনাকে উল্লেখ করতে হবে আপনার ব্যবসার স্থিতিপত্রের সারসংক্ষেপ। যেমন, নগদ ও ব্যাংক জমা, মজুদ, স্থয়ী সম্পদ, উত্তোলন, দায়সমূহ এবং মূলধন ইত্যাদি।

তাহলে আপনি আপনার ব্যবসার সারসংক্ষেপ দেখানো হয়ে গেল।

এবার আপনাকে রিটার্নের সাথে ব্যবসা সম্পর্কিত কাগজপত্র দাখিল করতে হবে। এর মধ্যে রয়েছে, আয়-ব্যয়ের বিবরণী (Income Statement) এবং স্থিতিপত্র (Balance Sheet)।

আপনি যে ব্যবসা পরিচালনা করেন তার আর্থিক কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য নিশ্চয় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট আছে। সারা বছরের সেই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর স্ট্যাটমেন্ট দিতে হবে।

যেহেতু আপনি ব্যবসা করেন সেহেতু উৎসে কর কর্তনের সাথে খুব ভালোভাবেই পরিচিত আছেন। আপনি টাকা পাওয়ার সময় যেখানে যেখানে উৎসে কর কর্তন করেছিলো সেখান থেকে চালান সংগ্রহ করে নিন। সেই চালানও আয়কর রিটার্নের সাথে জমা দিতে হবে।

এভাবে একে একে সব তৈরি করে আপনি মূল রিটার্নের সাথে আপনার ব্যবসা সংক্রান্ত কাগজপত্র দাখিল করবেন।

তবে যারা bdtax.com.bd-এর সফটওয়্যার ব্যবহার করে রিটার্ন তৈরি করবেন তারা নির্ধারিত বক্সে গিয়ে সংখ্যা বসিয়ে দিলেই রিটার্ন তৈরি হয়ে যাবে। আর তা প্রিন্ট করে নিলেই আপনার রিটার্ন জমা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত।

জসীম উদ্দিন রাসেল
FACEBOOK
©BDTax.com.bd 2018

By | 2018-10-15T09:25:40+00:00 September 20th, 2018|Tax Filing|0 Comments

About the Author:

Leave A Comment

*

Shares
error: Content is protected !!